নিষ্ক্রিয় গ্যাসের স্থিতিশীলতা

নিষ্ক্রিয় গ্যাসের স্থিতিশীলতা

নিষ্ক্রিয় গ্যাস বলতে পর্যায় সারণীর ১৮তম শ্রেণীর মৌলগুলোকে বোঝায়। কখনো একে অষ্টম শ্রেণী, হিলিয়াম পরিবার বা নিয়ন পরিবার নামে ডাকা হয়। ইংরেজিতে সচরাচর Gas হিসাবে অভিহিত। এই শ্রেণীতে অবস্থিত গ্যাসগুলো রাসায়নিকভাবে খুবই নিষ্ক্রিয়, কারণ এদের পরমাণুর সর্ববহিঃস্থ কক্ষপথে ইলেকট্রনের সংখ্যা পরমাণুর সর্বোচ্চ ধারণ ক্ষমতার সমান অর্থাৎ ৮টি। ইতিমধ্যে সুস্থিত ইলেকট্রনসমূহ অন্য কোন মৌলের সাথে সহজে বিক্রিয়া করতে চায় না। সাধারণ অবস্থায় এগুলো বর্ণহীন, গন্ধহীন উচ্চ আয়নিক বিভব সম্পন্ন এবং এক পরমাণুক গ্যাস। উপরন্তু এগুলোর স্ফুটনাংক ও গলনাংক খুবই কাছাকাছি। আলোকসজ্জা, ওয়েল্ডিং এবং মহাশূন্য প্রযুক্তিতে এই গ্যাসগুলোর প্রভূত ব্যবহার রয়েছে। নিষ্ক্রিয় গ্যাসের সংখ্যা সাত। এগুলো হল: হিলিয়াম, নিয়ন, আর্গন, ক্রিপ্টন, জেনন, রেডন এবং ওগানেসন। একে নোবেল গ্যাস বলা হয়।  

নিষ্ক্রিয় গ্যাসের ইলেকট্রন বিন্যাসের প্রতি লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে, নিষ্ক্রিয় গ্যাস সমূহের সর্ববহিঃস্থ শক্তিস্তরে অনুমোদিত সংখ্যক ইলেকট্রন দ্বারা পূর্ণ এবং ইলেকট্রনগুলো বিপরীত স্পিনসহ জোড়ায় জোড়ায় সজ্জিত। হিলিয়ামের বাইরের শক্তিস্তরে s অরবিটালে 2টি ও অন্যসব নিষ্ক্রিয় গ্যাসের সর্ববহিঃস্থ শক্তিস্তরে s ও p অরবিটালে মোট আটটি ইলেকট্রন (ns2np6) আছে। ফলে নিষ্ক্রিয় গ্যাসসমূহ অত্যন্ত স্থিতিশীল হয়। স্থিতিশীল ইলেকট্রনীয় গঠনের জন্য নিষ্ক্রিয় গ্যাস পরমাণু সমূহের কোনো ইলেকট্রন আসক্তি থাকে না, ফলে এরা অন্য কোনো মৌলের সাথে সাধারণত কোনো প্রকার ইলেকট্রন আদান-প্রদান বা শেয়ারে অংশগ্রহণ করে না এবং কোনো বন্ধন গঠনে বা রাসায়নিক বিক্রিয়ায় অংশ নেয় না। এজন্যই নিষ্ক্রিয় মৌলগুলো রাসায়নিকভাবে নিষ্ক্রিয়। এরা এতোই নিষ্ক্রিয় যে, এ মৌলগুলোর দুটো পরমাণু নিজেদের মধ্যেও যুক্ত হয় না। 

শেয়ার:

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 5 =