Radio wave

রেডিও ওয়েভ

রেডিও ওয়েভ হল ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তরঙ্গ যার ফ্রিকোয়েন্সি 3 KHz থেকে 300 GHz পর্যন্ত মুক্ত স্থানের সমস্ত দিকে প্রেরণ করা হয়। রেডিও ওয়েভগুলি সর্বমুখী, অর্থাৎ, সংকেতগুলি সমস্ত দিকে প্রচারিত হয়। রেডিও তরঙ্গের ক্ষেত্রে, প্রেরণ এবং গ্রহণকারী অ্যান্টেনা সারিবদ্ধ নয়, অর্থাত্, প্রেরণকারী অ্যান্টেনা দ্বারা প্রেরিত তরঙ্গ যে কোনও গ্রহণকারী অ্যান্টেনা দ্বারা গ্রহণ করা যেতে পারে৷ তরঙ্গের দৈর্ঘ্য 1 মি.মি. থেকে 100 কি.মি.। যোগাযোগে 10 KHz থেকে 1 GHz ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জ ব্যবহার করা হয়।

রেডিও ওয়েভ-এর প্রকারভেদ:

রেডিও ওয়েভ ৩টি শ্রেণিতে বিভক্ত। যথা:

  • লো-পাওয়ার সিঙ্গেল ফ্রিকোয়েন্সি: শুধু একটি ফ্রিকোয়েন্সিতে কাজ করে যা ৭০ মিটার বা ২৩০ ফুটের মধ্যে ট্রান্সমিশন উপযোগী। ট্রান্সমিশন গতি ১ থেকে ১০ Mbps।
  • হাই-পাওয়ার সিঙ্গেল ফ্রিকোয়েন্সি:  অনেক বেশি দূরত্বে সিগনাল পাঠানো যায়। চলার পথে কোনো বাধা থাকলে তা ভেদ করতে সক্ষম। ট্রান্সমিশন গতি ১ থেকে ১০ Mbps।
  • স্প্রেড স্পেকট্রাম: সিঙ্গেল ফ্রিকোয়েন্সি ট্রান্সমিশনে কেবল একটি ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করা হয়, আর স্প্রেড স্পেকট্রাম রেডিও ট্রান্সমিশনে একাধিক ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করা হয়।

রেডিও ওয়েভ-এর সুবিধা:

  • রেডিও ওয়েভ বিল্ডিং বা দেয়াল ভেদ করতে পারে। সুতরাং এটি ইনডোর এবং আউটডোর উভয় যোগাযোগের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • ট্রান্সমিটার এবং রিসিভার একই সরল রেখায় থাকার প্রয়োজন নেই।
  • রেডিও ওয়েভ বায়ুমণ্ডল দ্বারা শোষিত হয় না, ফলে বায়ুমণ্ডল দ্বারা সামান্যই প্রভাবিত হয়।

রেডিও ওয়েভ-এর অসুবিধা:

  • রেডিও ওয়েভ ট্রান্সমিশনে নিম্নসীমার ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহৃত হয়, বিপুল পরিমাণ তথ্য একসাথে প্রেরণ করা সম্ভব হয় না।
  • রেডিও ওয়েভ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

রেডিও ওয়েভ-এর ব্যবহার:

  • মোবাইল যোগাযোগের লিংক স্থাপনে।
  • টেলিভিশন ব্রডকাস্টিং।
  • ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্কে ব্যবহৃত হয়।
  • ইন্টারনেট সংযোগের জন্য টাওয়ার টু টাওয়ার রেডিও লিংক ব্যবহার করা হয়।
  • রেডিও বা বেতার যন্ত্রে ব্যবহার করা হয়।
  • যখন একজন প্রেরক এবং অনেকগুলো রিসিভার থাকে তখন মাল্টিকাস্টিংয়ের জন্য একটি রেডিও ওয়েভ দরকারি।

শেয়ার:

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × 3 =